Skip to main content

অন্ধ্রপ্রদেশ,ভারত

অন্ধ্রপ্রদেশ (/ˌɑːndrə prəˈdɛʃ/) হল ভারতের ২৯টি রাজ্যের অন্যতম। এই রাজ্য ভারতের দক্ষিণ-পূর্ব উপকূল অঞ্চলে অবস্থিত। এই রাজ্যের আয়তন ১,৬০,২০৫ কিমি (৬১,৮৫৫ মা)। এটি আয়তনের হিসেবে ভারতের অষ্টম বৃহত্তম রাজ্য। ২০১১ সালের জনগণনা অনুসারে, অন্ধ্রপ্রদেশের জনসংখ্যা ৪৯,৩৮৬,৭৯৯। জনসংখ্যার হিসেবে এটি দেশের দশম বৃহত্তম রাজ্য। অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তরে তেলঙ্গানা ও ছত্তীসগঢ়, দক্ষিণে তামিলনাড়ু, উত্তর-পূর্বে ওড়িশা, পশ্চিমে কর্ণাটক ও পূর্বে বঙ্গোপসাগর অবস্থিত। এই রাজ্যের উত্তরপূর্ব দিকে গোদাবরী বদ্বীপ এলাকায় পুদুচেরি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ইয়ানাম জেলা(আয়তন ৩০ কিমি (১২ মা)) অবস্থিত।[৫]

অন্ধ্রপ্রদেশ
ఆంధ్ర ప్రదేశ్
ভারতের রাজ্য
অন্ধ্রপ্রদেশের অফিসিয়াল লোগো
অন্ধ্রপ্রদেশের প্রতীক

অন্ধ্রপ্রদেশের উপকূলরেখার দৈর্ঘ্য ৯৭২ কিমি (৬০৪ মা)। এটি ভারতের দ্বিতীয় দীর্ঘতম উপকূলরেখা (গুজরাতের পরেই)।[৬] অন্ধ্রপ্রদেশ দুটি অঞ্চলে বিভক্ত: উপকূলীয় অন্ধ্র ও রায়ালসীমা। তাই এই রাজ্যকে সীমান্ধ্র নামেও অভিহিত করা হয়ে থাকে। রাজ্যের ১৩টি জেলার মধ্যে ৯টি উপকূলীয় অন্ধ্র এলাকার ও ৪টি রায়ালসীমার। বিশাখাপত্তনম ও বিজয়ওয়াড়া এই রাজ্যের দুটি বৃহত্তম শহর। ১০ বছরের জন্য হায়দ্রাবাদ শহরটি অন্ধ্রপ্রদেশ ও তেলঙ্গানার যৌথ রাজধানী।[৭] অন্ধ্রপ্রদেশ ভারতের একমাত্র রাজ্য যার রাজধানী রাজ্যের মূল ভূখণ্ডের বাইরে অবস্থিত। এই রাজ্যের রাজধানী হায়দ্রাবাদ অন্ধ্রপ্রদেশ-তেলঙ্গানা সীমান্ত থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

পূর্বঘাট পর্বতমালানাল্লামালা বনাঞ্চল, উপকূলীয় সমভূমি এবং গোদাবরী ও কৃষ্ণা নদীর বদ্বীপ অঞ্চল এই রাজ্যের প্রধান ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য। প্রচুর ধান উৎপন্ন হয় বলে এই রাজ্যকে "ভারতের চালের ঝড়ি" বলা হয়। তেলুগু এই রাজ্যের সরকারি ভাষা।এটি ভারতের একটি ধ্রুপদি ভাষা। সাংস্কৃতিক দিক থেকেও এই রাজ্য বেশ সমৃদ্ধ। তিরুমালা মন্দির সহ এখানে অনেক দ্রষ্টব্য স্থান রয়েছে।

তথ্যঃ উইকিপিডিয়া

Popular posts from this blog

Notice

20/01/2017
“বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম”
জনাব,
আসসালামুআলাইকুম,
আসছে আগামী ২৩-০১-১৭ ইং তারিখ রোজ
শুক্রবার ০৪.০০ ঘটিকায়
সিটপাড়া পাবলিক স্কুল মাঠ
প্রাঙ্গনে সিটপাড়া এডুকেশন সোসাইটির
উদ্যোগে এক আলোচনা ও মতবিনিময়
সভার আয়োজন করা হইয়াছে।
উক্ত সভায় আপনার/আপনাদের
উপস্থিতি একান্তভাবে কাম্য।
ভিজিট করুন : www.sedusociety.tk

#Update_1

এখন আমরা ফেসবুকের গ্রুপ ছাড়াও গুগল সার্চেও ছড়িয়ে পড়েছি। মূলত আমাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি Launch করার পর থেকে আমরা এই গৌরব অর্জন করেছি। আশা করি এখন থেকে আমাদের সদস্যগণের আমাদের ফেসবুকের লোকেশন পেতে কোনো সমস্যা হবে না। তাছাড়া আমাদের ক্লাবের সর্বশেষ আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে চোখ রাখুন☺

Society Rules

১।
সকল সদস্যের অক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন হতে হবে।
২।
প্রত্যেক সভায় সদস্যদের উপস্থিত থাকতে হবে।
৩।
সোসাইটি কেন্দ্রীক সকল সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে হবে।
৪।
ঐক্যবদ্ধভাবে এলাকার উন্নয়নমূলক কাজে অংশগ্রহন করতে হবে।
৫।
নিজের স্বার্থের চাইতে সোসাইটির স্বার্থকে বেশী মূল্যায়ন করতে হবে।
৬।
সোসাইটি পরিপন্থি কোন কথা বা কাজে জড়ানো যাবে না।
৭। পরপর ৩ দিন সভায় অনুপস্থিত থাকলে সভাপতির কাছে জবাবদিহিতা করতে হবে।বিঃদ্রঃসোসাইটির প্রয়োজনে যেকোন নিয়ম বা সময় পরিবর্তিত হতে পারে।